পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষকে মারধর। উত্তেজনা বড়শুলে।

অর্ঘ্য ব্যানার্জী, বড়শুল: পঞ্চায়েত সমিতির কর্মধ্যক্ষকে মার।  অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে। ঘটনা বর্ধমানের বড়শুলে ব্যপক উত্তেজনা।

অভিযোগ, অবৈধ ভাবে এক ব্যক্তির ব্যবসার জন্য দোকান ঘর তৈরির প্রতিবাদ করায় মারধর করা হয় বর্ধমান-২  পঞ্চায়েত সমিতির শিক্ষা, সংস্কৃতি, ক্রীড়া কর্মাধ্যক্ষ অম্বিকা দাসকে। তিনি জানিয়েছেন,
অফিসে বসে থাকার সময় ৩ জন বিজেপি কর্মী আসে। এবং ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এরপরই তাকে ধরে মারতে থাকে তারা। এমনকি অফিসের জিনিসপত্র ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ।
যদিও  পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে হাজির হয় ।

অম্বিকা দাস কে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসার জন্য বড়শুল ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র নিয়ে আসে।অম্বিকা দাস জানায়, ঐ তিন যুবক বিজেপি র কর্মী। শক্তিগড় থানায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয়েছে ।  তৃণমূল নেতা নিগ্রহের খবর পেয়ে এলাকার তৃণমূল কর্মীরা হাসপাতালে হাজির হয়ে ঐ তিন বিজেপি কর্মীর গ্রেফতারের দাবি জানায়।

পবিত্র তরফদার ও গৌড় পোড়েল কে শক্তিগড় থানার পুলিশ আটক করলেও দিবাকর গোলদারের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ।খবর পেয়ে বর্ধমান উত্তর বিধান সভার বিধায়ক নি়শীথ কুমার মালিক সেখানে পৌঁছান। তিনি বলেন, সোমবার এর প্রতিবাদে উত্তর বিধান সভার তৃণমূল কর্মীরা বড়শুল ২ অ়ঞ্চলে প্রতিবাদ সভা করবে। বর্ধমান উত্তর বিধানসভার বিজেপির  পর্যবেক্ষক প্রবাল রায় জানিয়েছেন, অম্বিকা দাস কয়েকদিন ধরেই এনআরসি নিয়ে অপপ্রচার করছিলেন । সাধারণ মানুষরা এই অপপ্রচারের ব্যাখ্যা চাইতে গিয়েছিলেন। তাদের সাথেই সেই সময় ঠ্যালাঠেলি হয়।  তাই এই ঘটনার সাথে বিজেপির কোন যোগ নেই। পরে পুলিশের সামনে বিজেপি তিন কর্মীকে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা মেরে মাথা ফাটিয়ে দেয়।