পুজোর পরই ঘটে আর্থিক উন্নতি । মেমারির এই বনেদী বাড়ির সেই কাহিনী ক্লিক করে পড়ুন

নিউজ ডেস্কঃ  পুরোনো ঐতিহ্য মেনে এখনো জাঁকজমকের সাথে পুজো হয়ে আসছে বর্ধমানের মেমারির দত্ত পাড়ার লাহা বাড়িতে। প্রায় ২০০ বছরের প্রাচীন এই পুজোকে কেন্দ্র করে আনন্দ উৎসবে মেতে ওঠেন পরিবার সহ এলাকার মানুষজন। পুজোর প্রতিষ্ঠাতা স্বর্গীয় মাখনলাল লাহা। কথিত আছে তিনি স্বপ্নাদেশ পান দেবীকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য। কিন্তু তার আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল না.।  তবুও তিনি নারকেল ও ডাব বিক্রি করে পয়সা জমিয়ে ঘটে পটে মায়ের পুজো শুরু করেন।  এরপরই তার আর্থিক উন্নতি হয়।  বাড়িতে প্রতিষ্ঠা করা হয় দুর্গা মন্দির। সেখানে একচালার দেবীর মূর্তি গড়ে পুজো শুরু হয়। সেই পরম্পরা এখনো চলছে। সেই সময় দুর্গা মন্দিরের কাছে একটি শিউলি গাছ লাগান। সেই গাছ এখনো রয়েছে। পুজোর সময় সেই গাছের শিউলি ফুল অর্ঘ দেওয়া হয়। বৈষ্ণব মতে পুজো হয় তাই বলি প্রথা নেই। একসময় বর্ধমানের সর্বমঙ্গলা বাড়িতে কামানদাগা হলে সেই আওয়াজ শুনে সন্ধি পুজো শুরু হত। যদিও এখন আর তা হয় না। নির্ঘণ্ট মেনে সন্ধি পুজো হয়। পুজোর সময় পরিবারের সকলে একত্রিত হয়। দশমীতে সিঁদুর খেলায় মেতে ওঠেন মহিলারা। প্রাচীন  নিয়ম আর রীতি মেনে এখনো জাঁকজমকের সাথে  এই পুজো করে আসছে বর্তমান সদস্যরা।

বনেদি বাড়ি অথবা থিমের পুজো, আপনার পাড়ার পুজোপুজোর খবরের জন্য ফোন করুন  ৭৯০৮০০২২৪৮, ৯৯৩৩১০৬৯০৪

*** ‘হাইলাইস বেঙ্গলএর নিউজ আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ Like  করুন।

আরও  খবর  দেখতে  google গিয়ে ক্লিক করুন-  www.highlightsbengal.com

আপনি কি কবিতা বা গল্প লেখেন? পাঠান আমাদের। ‘হাইলাইস বেঙ্গল’’ এর বিশেষ বিভাগ ‘আপনার লেখা’ তে প্রকাশিত হবে। আপনার লেখা পৌঁছে যাবে বিশ্বের দরবারে। লেখা পাঠান এই ই-মেলে- highlightsbengal.news@gmail.com

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের সেরা মাধ্যম ‘হাইলাইস বেঙ্গল’ বিজ্ঞাপনের জন্য  ফোন করুন- ৯৯৩৩১০৬৯০৪, ৭৯০৮০০২২৪৮