পেশায় শিক্ষক। কিন্তু কেউ হারিয়ে গেলে তাকে ফিরিয়ে দেন ঘরে। কেন? ক্লিক করে দেখুন

পত্রলেখা চন্দ্রঃ    মানসিক ভারসাম্যহীন বা রাস্তার ভবঘুরে বা যারা বাড়ির ঠিকানা ভুলে গেছে- এ রকম কারো সন্ধান পেলে প্রথমে সঙ্গে আলাপ জমানো। তার খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা করা। সবই করেন বর্ধমানের পিলখুরির এই যুবক। উদ্দেশ্য তাদের ঠিকানা জোগাড় করে বাড়িতে পৌছে দেওয়া। ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলার বেশ কয়েকজনকে বাড়ি ফিরিয়ে দিয়েছেন। আজ বজবজের এক পরিবারের হাতে তুলে দিলেন হারিয়ে যাওয়া এক ব্যাক্তিকে। না। কোন NGO নয়। কোন কিছু পাওয়ার প্রত্যাশায় নয়। এটাই নেশা। এটাই ভালোলাগা সৌভিক ভট্টাচার্যের ।  পেশায় প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক।  কাজ করেই আনন্দ পান। ছোট বেলায় কাকা হারিয়ে যায়। যদিও একদিন পর ফিরে পেলেও আপনজন হারানোর ব্যাথা এখনো অনুভব করেন। তাই কেউ হারিয়ে গেলে তাকে বাড়ি ফেরানোর জন্য উদ্যোগ নেন।   আজ হলদি দে পাড়ায় রীতিমতো উৎসবের মেজাজ। তাদের পাড়ার অজানা অতিথি কমল বাবু সৌভিকের হাত ধরে নিজের বাড়ি ফিরছে যে।

*** ‘হাইলাইস বেঙ্গলএর নিউজ আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ Like  করুন।

দক্ষিন ২৪ পরগনার বজবজের মানসিক ভারসাম্যহীন  কমল কুমার মণ্ডল। বছর চারেক আগে বাড়ি থেকে নিখোঁজ যান। পরিবার তার কোনও সন্ধান পাচ্ছিলো না। ঘুরতে ঘুরতে সে হাজির হয় এই হলদি এলাকায়। মানসিক ভারসাম্যহীন কমলাবাবুর কিছুই মনে পড়ছিল না।  এখানে  শিক্ষক সৈভিক বাবু ওই ব্যাক্তির সঙ্গে কথা বলেন। ওনার সঙ্গে বন্ধুত্ব তৈরি করেন। খাওয়া থাকার ব্যবস্থা করে দেন। এবং বিভিন্ন ভাবে কথা বার্তা বলে ওনার নাম ঠিকানা জানতে পারেন। এবং সেই মতো থানায় যোগাযোগ করেন। অবশেষে পুলিশের মাধ্যমে কমল বাবুর বাড়িতে যোগাযোগ করা হয়। এবং আজ এই রাখি পূর্ণিমার দিনে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়। কমলবাবুকে ফিরে পেয়ে পরিবারের সকলেও খুব খুশী।

আপনি কি কবিতা বা গল্প লেখেন? পাঠান আমাদের। ‘হাইলাইস বেঙ্গল’’ এর বিশেষ বিভাগ ‘আপনার লেখা’ তে প্রকাশিত হবে। আপনার লেখা পৌঁছে যাবে বিশ্বের দরবারে। লেখা পাঠান এই ই-মেলে- highlightsbengal.news@gmail.com

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের সেরা মাধ্যম ‘হাইলাইস বেঙ্গল’ বিজ্ঞাপনের জন্য  ফোনে করুন- ৯৯৩৩১০৬৯০৪, ৭৯০৮০০২২৪৮