রীতি মেনে দোলের পরের দিন রঙের উৎসবে মাতলেন বর্ধমানবাসী। কেন? ক্লিক করে দেখুন সেই কাহিনী।

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমানঃ  হোলির দিন নয়, আজ রঙের উৎসবে মাতলেন বর্ধমানবাসী। সারা রাজ্যের মানুষ দোল পূর্ণিমার দিন রঙ খেলায় মাতলেও বর্ধমান শহরে ওই দিন রঙ খেলা হয় না। রঙ খেলা হয় তার পরের দিন। চিরাচরিত প্রথা মেনে এই নিয়ম আজও মেনে চলছেন বর্ধমানবাসী। সকালে বর্ধমান রাজবাড়িতে লক্ষ্মী নারায়ণ জিউর মন্দিরে পুজা আর্চনা হয়। সেখানে এলাকার মানুষেরা ঠাকুরের পায়ে আবীর দিয়ে রঙ খেলা শুরু করেন।

তবে এর পিছনে রয়েছে একটি কাহিনী। বর্ধমান মহারাজা বৈষ্ণব ধর্মে দিক্ষিত ছিলেন। ১৮৩৪ সালে বর্ধমান মহারাজা মহাতাপ চাঁদের সময় থেকে এই নিয়ম চলে আসছে। সেই সময় রাজবাড়িতে দোল পূর্ণিমায় লক্ষ্মী নারায়ণ জিউর মন্দিরে পুজো শুরু হত। পুজো শেষ হতে বিকেল গড়িয়ে যেত। কিন্তু রাজ কর্মচারী থেকে শহরবাসী সকলেই এই পুজোয় অংশ নিতেন। তাই কেউই এই দিন রঙ খেলতে পারতো না। এই কারণে তখন মহারাজা প্রজাদের আনন্দ দেওয়ার জন্য ঘোষণা করেন দোল পূর্ণিমার পরের দিন সবাই একসাথে রঙ খেলবে। সেই সময় থেকে ধুমধামের সঙ্গে দোল পূর্ণিমার পরের দিন সকাল থেকে রঙ খেলায় মাতেন সকলে। পুরনো সেই প্রথা আজও চলে আসছে। সারা দিনভর শহর জুড়ে চলল নানান অনুষ্ঠান।

***প্রতি মুহূর্তে ‘হাইলাইস বেঙ্গল’ এর নিউজ আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ Like  করুন।

h 2222