স্বপ্নাদেশ মাটির নিচ থেকে উদ্ধার হয়েছিল দেবীর মূর্তি। তারপর কি ঘটলো? বর্ধমানের এই কাহিণী ক্লিক করে পড়ূন

নিউজ ডেস্কঃ    বর্ধমানের আউসগ্রাম থানার বেলাড়ি গ্রামে মুখ্যার্জী বাড়ির পুজো ঘিরে রয়েছে এক কাহিনী। কথিত আছে, স্বপ্নাদেশে মাটির নিচ থেকে উদ্ধার হয়েছিলেন মা সিংহবাহিনী ৷ শোনা যায় , লক্ষণ মুখার্জী নামে গ্রামের এক ব্যক্তি দেবীর স্বপ্নাদেশ পান। সেই মতো দেবীকে মাটির নিচ থেকে তুলে প্রতিষ্ঠা করা হয়। সেই সময় বর্ধমানের মহারাজ তিলকচাঁদ সেই ব্যাক্তির সততায় খুশী হয়ে কিছু অর্থমূল্য ও একশ বিঘা জমি দান করেন.  সেই দানের টাকায় এখনো পুজো হয়ে আসছে।

*** ‘হাইলাইস বেঙ্গলএর নিউজ আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ Like  করুন।

২৬৫ বছরের প্রাচীন এই পুজো পুরনো ঐতিহ্য বহন করে আসছে। প্রাচীন রীতি মেনে এখনো জাঁকজমকের মা সিংহবাহিনীর মূর্তির সঙ্গে মাটির দেবী দুর্গার মূর্তি গড়ে একসঙ্গে পুজো হয়ে আসছে। অষ্ট ধাতুর এই মূর্তিতে লক্ষ্মী,সরস্বতী, কার্তিক,গনেশ নেই। এই পুজো বড়বাড়ীর পুজো হিসাবে প্রসিদ্ধ। এই পুজোর একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রথা হল অপরাজিতা প্রথা। দশমীর দিন অপরাজিতা পাতা দিয়ে তৈরী বলয় বা চুড়ির মতো হাতে বাঁধা হয় যা সারা বছর থাকে রক্ষাকবচ হিসাবে। শাক্ত মতে পূজা হওয়ায় বলিদান প্রথা আছে ৷ বংশ পরম্পরায় মুখার্জী পরিবার বর্তমানে ৯ ভাগে বিভক্ত ৷ ৯ টি পরিবার থেকে ৯ থালা ভোগ না এলে পূজা শুরু হয় না ৷ এখানে দেবীকে সপ্তমী ও নবমীতে অন্ন ভোগের সঙ্গে নানারকম মাছের ভোগ দেওয়া হয় ৷ দশমী নয়, এখানে দেবীর বিসর্জন হয় একাদশীতে। সেদিনই হয় সিঁদুর খেলা। এই পুজো ঘিরে আনন্দ উৎসবে মেতে ওঠেন পরিবার সহ এলাকাবাসীরা। বাইরে থেকেও লোকজন আসে। দশমীর দিন হয় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ৷

 

বনেদি বাড়ি অথবা থিমের পুজো, আপনার পাড়ার পুজোপুজোর খবরের জন্য ফোন করুন  ৭৯০৮০০২২৪৮, ৯৯৩৩১০৬৯০৪

আরও  খবর  দেখতে  google গিয়ে ক্লিক করুন-  www.highlightsbengal.com     

আপনি কি কবিতা বা গল্প লেখেন? পাঠান আমাদের। ‘হাইলাইস বেঙ্গল’’ এর বিশেষ বিভাগ ‘আপনার লেখা’ তে প্রকাশিত হবে। আপনার লেখা পৌঁছে যাবে বিশ্বের দরবারে। লেখা পাঠান এই ই-মেলে- highlightsbengal.news@gmail.com

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের সেরা মাধ্যম ‘হাইলাইস বেঙ্গল’ বিজ্ঞাপনের জন্য  ফোন করুন- ৯৯৩৩১০৬৯০৪, ৭৯০৮০০২২৪৮