রোজগারের লোভ দেখিয়ে নিয়ে গিয়েছিল গুজরাট। গিয়ে কি মিলল ভাবতেও পারবেন না। ক্লিক করে দেখুন

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, পূর্ব বর্ধমানঃ    বাবা মা কেউ নেই। মামারবাড়িতে মানুষ। গরীব পরিবার। প্রতিবেশী এক যুবক টাকা রোজগারের লোভ দেখিয়ে গুজরাটে নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে শুরু হয় চরম অত্যাচার। মারধোর করা হয়। সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়া হয়। এমনকি গরম লোহার রডের ছ্যাঁকা দেওয়া হয়। ঘটনায় চাঞ্চল্য।

*** ‘হাইলাইস বেঙ্গল’ এর নিউজ আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ Like  করুন।

জানা গেছে,  বছর খানেক আগে কাজের জন্য প্রতিবেশী সুশোভন পোড়েলের সঙ্গে গুজরাটের রাজকোটে যায় পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরের রবিদলুই সহ পাঁচ জন নাবালক যুবক। ওখানে আলমগির নামে এক স্বর্ন ব্যবসায়ীর কাছে কাজে যোগ দেয়। কিন্তু এর পর থেকেই শুরু হয় অত্যাচার। মারধোর করে। সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়া হয়। এমনকি গরম লোহার রডের ছ্যাঁকা দেওয়া হয়। সকাল আটটা থেকে রাত দুটো পর্যন্ত কাজ করায়। ঠিক করে খেতে পর্যন্ত দেওয়া হয় না। মাস খানেক আগে সবাই পালানোর চেষ্টা করলে আলমগীরের লোকজন স্টেশন থেকে ধরে নিয়ে আসে। এরপর আলমগীর প্রত্যেক পরিবারের কাছ থেকে 1 লক্ষ্য 20 হাজার টাকা দাবী করে ছেলেকে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য। সেই মতো সবাই সেই টাকা দিয়ে ছেলেদের ফিরিয়ে নিয়ে গেলেও রবির পরিবার সেই টাকা না দিতে পারায় রবিকে ছাড়ে না। শুরু হয় আরও অত্যাচার। ইতিমধ্যে  রবির অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে আলমগীর রবির প্রতিবেশী সুশোভনের বাড়িতে পৌছে দেয়। এবং রবিকে লুকিয়ে রাখা হয়। মঙ্গলবার প্রতিবেশীরা জানতে পেরে মঙ্গলবার সুশোভনের বাড়ি থেকে রবিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। থানায় অভিযোগ জানানো হয়। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। এরপরই সকলে পলাতক।

আপনি কি কবিতা বা গল্প লেখেন? পাঠান আমাদের। ‘হাইলাইস বেঙ্গল’’ এর বিশেষ বিভাগ ‘আপনার লেখা’ তে প্রকাশিত হবে। আপনার লেখা পৌঁছে যাবে বিশ্বের দরবারে। লেখা পাঠান এই ই-মেলে- highlightsbengal.news@gmail.com

আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনের সেরা মাধ্যম ‘হাইলাইস বেঙ্গল’ বিজ্ঞাপনের জন্য  ফোনে করুন- ৯৯৩৩১০৬৯০৪, ৭৯০৮০০২২৪৮